Google AI কি এবং গুগল এআই কীভাবে ব্যবহার করবেন?

গুগল এ আইGoogle AI কি এবং গুগল এআই কীভাবে ব্যবহার করবেন পোষ্টে আপনাদের স্বাগতম। আপনাকে অবশ্যই কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (Artificial Intelligence) সম্পর্কে জানতে হবে। কম্পিউটার বিজ্ঞানের ক্ষেত্রে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাকে কখনও কখনও মেশিন ইন্টেলিজেন্স বলা হয়। এটি বুদ্ধি, যা মানুষ এবং প্রাণী দ্বারা প্রদর্শিত প্রাকৃতিক বুদ্ধির বিপরীতে। এই পোস্টে আপনি গুগল এআই (Google AI) সম্পর্কে সম্পূর্ণ তথ্য পাবেন। তাহলে আসুন জেনে নেওয়া যাক গুগল এআই কি এবং কিভাবে এটি ব্যবহার করতে হয়?
Google AI কি এবং গুগল এআই কীভাবে ব্যবহার করবেন?
Google AI কি এবং গুগল এআই কীভাবে ব্যবহার করবেন?

গুগল এখন AI for social good নামে একটি নতুন প্রোগ্রামে মেশিন লার্নিং প্রচেষ্টাকে একত্রিত করছে, এমন অত্যাধুনিক প্রযুক্তির অগ্রগতি সম্পর্কে এবং এটি যে কেউ ব্যবহার করতে পারবে।

যদিও আমরা এটি প্রতিদিন ব্যবহার করি, কিন্তু খুব কম লোকই জানে গুগল এ আই কি এবং এর ব্যবহার কি, তাই আসুন আজ জেনে নেওয়া যাক Google AI Ki এবং গুগল এআই কীভাবে ব্যবহার করবেন?

গুগল এআই কি?

Google AI কি: গুগল এ আই হলো গুগলের একটি বিভাগ যা সম্পূর্ণরূপে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার জন্য নিবেদিত। এটি গুগলের CEO “সুন্দর পিচাই” 2017 সালে ঘোষণা করেছিলেন। এটি ফোনে বাস্তব বিশ্বের কাজ সম্পন্ন করার জন্য একটি এআই সিস্টেম। AI মানে হলো কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা।

Google এর উদ্দেশ্য হলো বিশ্বের সকল তথ্য সংগঠিত করা এবং এটি সর্বজনীনভাবে অ্যাক্সেসযোগ্য ও উপযোগী করা হয়। Google AI আমাদেরকে উত্তেজনাপূর্ণ নতুন উপায়ে কাজ করতে সাহায্য করে এবং ইন্টারনেট গ্রাহক এবং বিশ্বের সমস্যা সমাধানে সহায়তা করে।

গুগল এআই মানুষের জন্য প্রতিদিন কাজ করা সহজ করে দিচ্ছে। যেমন - গুগলে কারও ছবি খোজা বা প্রিয়জনের ছবি খোঁজা, গুগল ট্রান্সলেটে ভাষায় ভুল সংশোধন করা, ই-মেইল টাইপ করা বা গুগল অ্যাসিস্ট্যান্টের সাথে কাজ করা। তাছাড়াও Google AI এ বিদ্যমান স্বাস্থ্য সমস্যার জন্য নতুন পন্থা অবলম্বন করা।

মানুষের কাজের সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য, যাতে তারা আরও বেশি কিছু করতে পারে এবং তাদের সৃজনশীল প্রচেষ্টায় আরও বেশি সময় ব্যয় করতে পারে সেজন্য Google AI সাহায্য করে।

এটি সব জায়গায় মানুষকে বড় এবং ছোট সমস্যা সমাধানে সাহায্য করা। এটি সামাজিকভাবে উপকারী, ন্যায্য, জবাবদিহি এবং সকলের জন্য কাজ করে। 

কিভাবে Google AI ব্যবহার করবেন?

গুগল এআই ব্যবহার করতে, আপনি তার অফিসিয়াল ওয়েবসাইট google.ai এ যান। এতে আপনি অনেক ক্যাটাগরি পাবেন। প্রতিটি বিভাগে বিভিন্ন তথ্য পাওয়া যাবে যেমন শিক্ষা বিভাগে আপনি গুগল বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে কোডিং শিখতে পারেন।

গুগল এআই দিয়ে আপনি আপনার দক্ষতা বিকাশ এবং আপনার প্রকল্পগুলিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য তথ্য, কৌশল এবং অনুশীলন করা শিখতে পারবেন।

এআই একটি সুদূরপ্রসারী সায়েন্স ফিকশন ধারণার মত মনে হয়। আপনি সম্ভবত এটি সম্পর্কে প্রথমবার শুনেছেন কিন্তু এটি আসলে আপনার দৈনন্দিন জীবনে আপনি যা করতে পারেন তার সাথে অনেককিছু যুক্ত, যার মধ্যে কয়েকটি হল:

আমরা আমাদের জীবনে Google AI কে নিম্নলিখিত উপায়ে ব্যবহার করছি।

১। অনুসন্ধান করতেঃ

গুগল ফটো লাইব্রেরিতে আপনার প্রিয় বন্ধু এবং অন্যদের ছবি খুঁজে পেতে এটি ব্যবহার করে খুব সহজেই কাঙ্কিত ছবিটি বের করতে পারবেন। আমাদের অনুলিপি করা ছবিগুলি অনুসন্ধান করতেও গুগল এআই সহায়তা করে থাকে।

২। সঠিক সঙ্গীত বাজানোঃ

গুগল প্লে মিউজিক ব্যক্তিগতকৃত গবেষণায় বিতরণ করে যে কোনো মুহূর্তের জন্য সঠিক সঙ্গীত খুঁজে পেতে, দিনের সময় বা আবহাওয়ার মতো বিষয়গুলি বিবেচনা করে। প্লে মিউজিক রাতের খাবার রান্না বা সূর্যাস্ত দেখার জন্য সঠিক সঙ্গীত প্রস্তাব করতে পারে

৩। ছবি blur করার জন্যঃ

যখন পিক্সেল টু প্রোটেক্ট মোডে একটি ছবি তোলা হয়, তখন এটি ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড পুরোপুরি blur করে দেয়। ছবি blur করতে গুগল এআই সাহায্য করে থাকে।

৪। Machine Learning এর জন্যঃ

মেশিন লার্নিং অ্যালগরিদম দ্বারা চালিত ক্যাপশন সহ এক বিলিয়ন ইউটিউব ভিডিও দেখতে পারেন 100 টি ভাষায় । 

৫। জিমেইলে স্বয়ংক্রিয় উত্তরের জন্যঃ

আপনি Gmail এ স্মার্ট রিপ্লাই দিয়ে দ্রুত ইমেলের উত্তর দিতে পারেন। স্মার্ট রিপ্লাই আপনার প্রাপ্ত ইমেইলের উপর ভিত্তি করে দিনের সাড়া দেওয়ার জন্য গুগল AI ব্যবহার করে স্বয়ংক্রিয়ভাবে উত্তর দিয়ে আপনার সময় বাঁচাতে পারবেন।

৬। পুরনো বার্তার উত্তর দিতেঃ

জিমেইল এআই ব্যবহার করে আপনাকে উত্তর দিতে দুই বা তিন দিনের পুরনো বার্তা অনুসরণ করে।

৭। গুগল প্লে স্টোরে অ্যাপ পর্যালোচনা করতেঃ

প্রতিদিন গুগল প্লে স্টোরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ৫০ মিলিয়নেরও বেশি অ্যাপ এবং এমনকি ডিভাইস গুগল এ আই পর্যালোচনা করে এবং সন্দেহজনক কিছু হলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে ব্যবস্থা নেয়।

৮। গুগল ট্রান্সলেট এর জন্যঃ

গুগল ট্রান্সলেট শব্দ সনাক্ত করার জন্য অপটিক্যাল ক্যারেক্টার রিকগনিশন এবং একটি অনুবাদ পদ্ধতি ব্যবহার করে যা লক্ষ লক্ষ উদাহরণে অনুমান করার জন্য তাদের প্রশিক্ষিত করা হয়।

৯। একাধিক ভাষায় কথা বলাঃ

আপনি আপনার গুগল সহকারীর সাথে এক ডজনেরও বেশি ভাষায় যোগাযোগ করতে পারেন। প্রতি বছর এর সাথে আরো অনেক ভাষা যুক্ত হয়। এতেও গুগল এআই ব্যবহার করা হয়।

১০। গুগল ম্যাপে কাছাকাছি জিনিস খুঁজে পেতেঃ

এআই গুগল ম্যাপে তার রাস্তার দৃশ্যের ছবি এবং রাস্তার নাম সনাক্ত করতে ব্যবহৃত হয়। এটি আপনার আশেপাশের স্থান, বই, শিল্পকর্ম বা এমনকি আপনার প্রতিবেশীর কুকুরও সনাক্ত করতে ব্যবহার করা যেতে পারে।

১১। পরিকল্পনা এবং সময়সূচীঃ 

গুগল টিপসের একটি স্মার্ট অ্যালগরিদম আপনাকে আপনার পরবর্তী ভ্রমণের পরিকল্পনা করতে সাহায্য করতে পারে। এটি আধুনিক পরিবহনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য।

 
তাই বলা যায়, আমরা প্রতিদিন পরোক্ষ ভাবে হলেও এটি ব্যবহার করি। ইন্টারনেট ব্যবহারকারী প্রতিটি ব্যক্তি গুগল এআই ব্যবহার করে।

শেষকথাঃ আশা করি, Google AI কি এবং গুগল এআই কীভাবে ব্যবহার করবেন পোষ্টটি আপনারদের ভালো লেগেছে। পুরু লেখাটি মনোযোগ সহকারে পড়লে গুগল এ আই সম্পর্কে সম্পূর্ণ জ্ঞান অর্জন করতে পারবেন। 

শেয়ার করুন:

No Comment
Add Comment

দয়া করে কমেন্ট নীতিমালা মেনে মন্তব্য করুন - অন্যথায় আপনার মন্তব্য গ্রহণ করা হবে না।

comment url